Why Choose Us

You might get all kind of IT services from us. We are Best IT Company in Bangladesh

Services

Features & Specifications

We provide online and offline software. We use quality developer for creating software. You will be happy with our services. always you are most welcome.

We are useing JAVA,PHP,NODE-JS,HTML,CSS,BOOTSTRAP,.NET to create client software.

tablet-black
tablet-white

OUR sister concern

We are not only an IT company, we are a network.

SoftCare Institute

Training Institute

ShopCare

E-commerce

Software Chai

IT Consultant

SoftCare Studio

e Studio


Our Capabilities

We are quite capable to make our client pleased.

skills-image
skills-image

90%

services

skills-image
skills-image

95%

Courses

We provide quality training with low cost. We also hire our future employee from our trainy student.

skills-image
skills-image

85%

Consultancy

This crash course in layers reveals or shows you in photoshop and create wonders in graphics industry...

Latest Blog

Learn about new technology and our work flow in regular besis from our blog

blog-image
08 May 2020

ফ্রিল্যান্সিং কি ? নতুনদের জন্য উপযোগী ফ্রিল্যান্স মার্কেটপ্লেস

ফ্রিল্যান্স (Freelance) শব্দটি Free এবং Lance দুটি শব্দের সমান্বয়ে তৈরি। ১৯০০ শতকের শুরু হতে এই শব্দটির প্রচার ও প্রসার বাড়তে থাকে।

ফ্রিল্যান্সার (Freelancer) হচ্ছে এমন একজন ব্যক্তি যিনি কোনো নির্দ্দিষ্ট  প্রতিষ্ঠানের সাথে কোনো প্রকার চুক্তিবদ্ধ না হয়ে স্বাধীন ভাবে কাজ করে থাকে। এখানে তার কাজের কোনো নির্দ্দিষ্ট পারিশ্রমিক নাও থাকতে পারে, আবার ফুল টাইম বা পার্ট টাইম এ বিষযটি নির্দ্দিষ্ট নাও হতে পারে।

আরো সহজ ভাবে বললে, ফ্রিল্যান্সার হচ্ছে মুক্ত বা স্বাধীনচেতা একজন- যিনি বি​ভিন্ন প্রতিষ্ঠানের হয়ে নিজ দক্ষতা অনুযায়ী বিভিন্ন ধরনের কাজ করে থাকেন।

যেমন: ​একজন রাইটার যিনি কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের জন্য কিছু কন্টেন্ট লিখে থাকে। তেমনি একজন লোগো ডিজাইনার কিছুদিনের জন্য কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের হয়ে লোগো ডিজাইন করে থাকে।

 

ফ্রিল্যান্সিং এর সুবিধা

  • একজন ফ্রিল্যান্সার নিজেই তার পচ্ছন্দের কাজ বেছে নেয়, এক্ষেত্রে কেউ তাকে জোর করে কোনো কাজ চাপিয়ে দিতে পারে না।
  • আপনি কত পারিশ্রমিক মূল্যে কাজ করবেন এটা অনেক সময় আপনি নিজেই নির্ধারন করে থাকেন। 
  • আপনি ফ্রিল্যান্সিং যেকোনো সময় শুরু করতে পারেন। এর জন্য খুব বেশী কোনো পূর্ব প্রস্তুতি দরকার পরেনা। শুধুমাত্র আপনি কোন একটি নির্দ্দিষ্ট বিষয়ে দক্ষ হলে ঐটা নিয়েই কাজ শুরু করতে পারবেন।
  • একজন ফ্রিল্যান্সার কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের সাথে কাজ করবে এটি সে নিজেই নির্ধারন করতে সক্ষম। এক্ষেত্রে তার পূর্ণ ইচ্ছা স্বাধীনতা রয়েছে।
  • আপনি একজন ফ্রিল্যান্সার হলে আপনি নিজেই নিজের কাজের সময় নির্ধারন করবেন।  এখানে কাজের সময় নির্ধারনে স্বাধীনতা রয়েছে।
  • এককথায়, একজন ফ্রিল্যান্সার নিজেই তার কাজের ছক অংকন করে এবং নিজেই সেটি পরিচালনা করে থাকে

 

ফ্রিল্যান্সিং এর অসুবিধা

  • অনেক বেশী প্রতিযোগীতা করে টিকে থাকতে হয়। বর্তমানে কেউ ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে চাইলে তাকে অনেক বেশী প্রতিযোগীতার সম্মুখীন হতে হবে। কেননা, প্রতিনিয়ত ফ্রিল্যান্সার এর সংখ্যা বেড়েই চলেছে।
  • একজন ফ্রিল্যান্সার যেহেতু তার পচ্ছন্দমত কাজ বেছে নেয়, তাই তার কাছে সবসময় কাজ নাও থাকতে পারে। 
  • বিভন্ন সময় ভিন্ন ভিন্ন ক্লায়েন্ট নিয়ে আপনাকে কাজ করতে হবে। তাই সকলকে সমান ভাবে সন্তুষ্ট রাখাটা একটু কঠিন হয়ে পরে, অনেক বেশী চ্যালেঞ্জিং।
  • প্রথম কাজ পেতে হয়ত আপনার অনেক বেশী সময় লাগতে পারে এবং আপনার কাজের রেটও তুলনামূলক কম হতে পারে।
  • কিছু ভালো ক্লায়েন্ট বেজ তৈরি করা সময় সাপেক্ষ কাজ, এক্ষেত্রে আপনাকে ধৈর্যের পরিচয় দিতে হবে।

 

ফ্রিল্যান্স ক্যারিয়ার শুরু করার উপযোগী ৩টি মার্কেটপ্লেস

এখন আমি আপনাদেরকে জনপ্রিয় তিনটি মার্কেটপ্লেসের সাথে পরিচিত করাবো, যেগুলি থেকে আপনি আপনার ফ্রিল্যান্স ক্যারিয়ার শুরু করতে পারেন।

 

 
মার্কেটপ্লেস ফাইভার আপওয়ার্ক ফ্রিল্যান্সার ডট কম 
প্রতিষ্ঠা সাল ২০১০ ১০১৫ ২০০৯
প্রতিষ্ঠাতা / সিইও সাই উইনিগরি ও মিকা কফম্যান স্টিফেন ক্যাসরিয়েল ম্যাট বেরী
হেড অফিস তেলাভিভ, ইসরাইল ক্যালিফোর্নিয়া সিডনি, অস্ট্রেলিয়া
রেজিষ্টার ফ্রিল্যান্সার নির্দ্দিষ্ট নয় ১ কোটি + ১ কোটি +

 

 

 

Read More
blog-image
29 Jul 2019

তরুণরাই পারে বেকার শব্দকে বেকার করতে ।।

বর্তমান সময়ের তরুণ উদ্যোক্তাদের মাঝে অন্যতম  সুজয় দে। তিনি সফটকেয়ার আইটির সহ প্রতিষ্ঠাতা এবং একজন সফল উদ্যোক্তা। তার চলার পথের কিছু অভিজ্ঞতা শেয়ার করেছেন আজ আমাদের সাথেঃ

 

আপনি একজন তরুণ উদ্যোক্তা, একজন সফল উদ্যোক্তা বলা যায় আপনাকে।

  • আসলে সফল কিনা জানি না, তবে যে স্বপ্ন বুকে নিয়ে আর ইচ্ছে শক্তি নিয়ে নেমেছিলাম অজানা পথে সে পথ এখন অনেকটাই পরিচিত হয়েছে।

 

কিভাবে শুরুটা ছিল?

  • শুরু বলতে অনেকটা ঘোরের মাঝেই হয়ে গেছে অনেক কিছু। আসলে জীবনে কিছু করতে চাইলে সব থেকে বেশী যে জিনিস গুলো প্রয়োজন সেটা হলো একদম মন থেকে সৎভাবে ইচ্ছা আর বুক ভরা সাহস, কারণ রিস্ক ছাড়া কিছু সম্ভব না জীবনে, সেটা যে ক্ষেত্রেই হোক না কেন। আর এছাড়া আরো বড় একটা বেপার কাজ করেছে তা হলো টিম ওয়ার্ক। ছোট সময় যেমন গল্প পড়েছি কাঠি ভাঙ্গার যে একটা কাঠি সহজেই ভেঙ্গে যায় কিন্তু একসাথে অনেকগুলো কাঠি হলে তখন তা শক্ত বাশের মত সহজে ভাঙ্গা যায় না, টিম ওয়ার্ক জিনিসটা সেরকম। আমি কখনো হতাশ হলেও বা ভেঙ্গে পরলেও আমার বাকী সাথীদের সাহায্যে তা সহযেই ওভারকাম করতে পেরেছি। তাই আমার মনে হয় এই জিনিসটা খুব দরকারী আবার একই ভাবে যদি টিম মেম্বারদের আত্মার বন্ধন না থাকে তাহলে হিতে বিপরিতই হবে। আর এছাড়া স্ট্রাগল বা কষ্ট সে তো যে কোন কিছুতেই রয়েছে। কিছু অর্জন করতে গেলে অবশ্যই অনেক কিছু সেক্রিফাইজ করতে হয়, কষ্ট করতে হয়। সেসব আছে, কিন্তু আলাদা করে আর বলতে চাই না।

 

আপনি অনেক ধরনের ব্যবসাই তো করেছেন শুরুর দিকে?

  • হ্যাঁ । আসলে মধ্যবিত্ত পরিবার থেকে এসে বিনা পুঁজিতে কিছু করে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করা খুব একটা সুখের হয় না। তাই অনেক কিছুই করা হয়েছে, এখনো করি। আমি ফল ও বিক্রি করেছি, ডেলিভারিম্যান এর কাজ ও করেছি আবার কাপড়চোপড়ও বিক্রি করেছি। এমন অনেক কিছুই করেছি, তবে আমি মনে করি এই সবগুলো কাজ আমাকে আজকের এইটুকু হতে সাহায্য করেছে, যদিও আরো অনেক বাকী আছে সামনে যাবার, কেবল তো শুরু ।

 

সফটকেয়ার নিয়ে কিছু বলুন।

  • সফটকেয়ার এখন আসলে রক্তে মিশে গেছে, এটা নিজের সন্তানের মত। সফটকেয়ারে আমার সহকর্মী থেকে শুরু করে রুমের টেবিল টা পর্যন্ত এখন মনে হয় আমার আত্মার আত্মীয় ।

 সফটকেয়ার এ এখন মোট কত জন কাজ করছে?

  • আসলে সফটকেয়ার এ এখন অনেকগুলো শাখা হয়েছে, যেমন ডেভেলপমেন্ট সাইট, ট্রেইনিং ইন্সটিটিউট, কনসালটিং ফার্ম। এছাড়াও আমাদের এখন কয়েকটি সিস্টার কম্পানি রয়েছে, শপকেয়ার, মাদ্রে-হেলথ কেয়ার, সফটকেয়ার স্টুডিও, সফটকেয়ার পাবলিকেশন সহ আরো বেশ কিছু। আমাদের বেশ কিছু পার্টনার কম্পানি রয়েছে দেশে এবং ভারতেও। তো সব মিলিতে আমাদের এখন প্রায় ২৫ জন কাজ করছে এছাড়াও পার্ট টাইম বা অনলাইনে আরো প্রায় ১৫ জন কাজ করছে আমাদের সাথে।

 

তরুণদের আপনি কি বলবেন?

  • তেমন কিছু বলবো না, কারণ কিছু বলার মত বা উপদেশ দেবার মত কেউ হইনি এখনো আমি। তবে আমার যেটা মনে হয় কেবল তরুণরাই পারে বেকার শব্দকে বেকার করতে, অর্থাৎ এই যে চাকরী নেই বেকার বসে আছে এই অজুহাত থেকে বের হয়ে এসে তরুণরাই পারে নিজে কিছু করতে আর সাথে অন্য দশজনের জন্য কাজের ক্ষেত্র তৈরি করতে। আমি যদি মধ্যবিত্ত পরিবার থেকে এসে বিণাপুজিতে শুধু মাত্র ইচ্ছা আর পরিশ্রমে এই পর্যন্ত আসতে পারি তাহলে ইচ্ছাশক্তি থাকলে যে কেউ পারবে আশা করি। তারপরও কিছু ব্যাতিক্রম তো থাকবেই।

 

অনেক ধন্যবাদ আপনাকে, আমাদের সময় দেবার জন্য। অনেক গল্পশোনার বাকী রয়ে গেলো অন্য একদিন আমাদের পাঠকদের জন্য আবার নিয়ে আসবো আশা করি।

  • যদি তখনও উদ্যোক্তা হিসেবে বাজারে টিকে থাকি তাহলে, হা হা হা... হারিয়ে গেলে আর কেউ শুনবে না।

ধন্যবাদ আপনাকে।

  • আপনাকেও, আমার মত একজনের সাথে কথা বলার জন্য । হা হা হা 

Read More
blog-image
15 May 2019

কেনো হবেন উদ্যোক্তা?

শিক্ষা,বেকারত্ব,হতাশা তিনটি শব্দ বর্তমান যুব সমাজের সাথে ওতোপ্রতো ভাবে জড়িত। বিশ্বায়নের এই যুগেও আমাদের দেশের বেকারত্বের হার দিন দিন বেড়েই চলেছে।সবচেয়ে মজার ব্যাপার হলো আমাদের দেশের বেকার যুব সমাজের একটা বড় অংশ শিক্ষিত গ্র্যাজুয়েট।কিন্তু কখন ও খেয়াল করে দেখেছেন কি আপনি যখন ২৪/২৫ বছর বয়সে পড়াশোনা শেষ করে চাকরী নামক সোনার হরিণের পেছনে দৌড়াচ্ছেন,ততদিনে আপনার বন্ধুটি বা আপনার পাশের বাসার ছোট ভাই নিজে উদ্যোক্তা হয়ে তার ছোট খাট বিজনেস দাড় করিয়ে ফেলেছে! আর একটি আশানুরুপ চাকরী পেতে পেতে তার অধীনে হয়ত ২/১ জন কাজ ও করছে! কখন ও কারো কারো ক্ষেত্রে সেই আশানুরুপ চাকরী টিও পাওয়া হয়ে উঠে না।এখনি সময় শুধুমাত্র একটি চাকরির জন্য ২৪ বছর অপেক্ষা না করে নিজে শুরু করুন।

উদ্যোগী হবেন না চাকুরীজীবি?

অনেকেই এই ব্যাপার টা নিয়ে সিধান্তহীন্তায় ভূগেন। চাকুরী টা বেশি রিল্যাএবল বা কম রিস্কি মনে করে থাকেন।এটা সম্পূর্ণ ভূল ধারণা বলে আমি মনে করি।আপনার কাজের দক্ষতার উপর নির্ভর করবে আপমি কতটা আগাবেন,কাজের ক্ষেত্র এর উপর নয়। আপনি কি চান সেটা শুধুমাত্রই আপনার উপর নির্ভর করে। যদি আপনার চিন্তা ভাবনা থাকে আপনি একটা নির্দষ্ট টাইমিং এর মধ্যে থাকবেন,একটা নির্দিষ্ট রেগুলারিটি মেনটেইন করে চলতে পছন্দ করেন,নির্দিষ্ট গন্ডির ভেতর থাকতে চান তাহলে আপনার চাকুরী বেছে নেয়া উচিত।আবার আপনি যদি মিজের মত করে কিছু করতে চান ,অন্যের অধীনে কাজ করতে পছন্দ না করেন সেক্ষত্রে আপনার উদ্যোক্তা হবার রাস্তা বেছে নেয়া উচিত।

কেনো হবেন উদ্যোক্তা?

প্রথমত উদ্যোক্তা হতে কোন নির্দিষ্ট সময় ,বয়স বা ডিগ্রী লাগবে না।লাগবে আপনার কাজের ইচ্ছে, পরিশ্রম, দক্ষতা আর সাহস।এমনকি পড়াশোনার পাশাপাশি ও শুরু করতে পারেন নিজের ছোটখাট কোন ব্যবসা।সেজন্য যে আপনার বড় এমাউন্টের পূজি বা জনবল দরকার তাও নয়।একদম ঘরোয়া ভাবে,অল্প পূজিতে, ছোট পরিসরে শুরু করে দিতে পারেন এখনি।এমনকি অনেকেই আজকাল পড়াশোনার পাশাপাশি এরকম ছোটখাট ব্যাবসা করে থকেন।দেখা যাবে আপনার বন্ধুরা যখন পড়াশোনা শেষ করে চাকুরী খুজছে ততদিনে আপনার একটা নিজস্ব পরিচয় আছে।এমনকি আপনি নিজে উদ্যোগী হইয়ে কর্মসংস্থানের সুজোগ সৃ্ষ্টি করতে পারেন।

উদ্যোক্তা হবার আরেকটি সুবিধাজনক দিক হচ্ছে কাজগুলো নিজের সময় মত করা যায়।নির্দিষ্ট কোণ ধরাবাধা টাইমিং নেই।

কিভাবে শুরু করবেন?

প্রায়শই অনেককে বলতে শোনা যায় “নিজে কিছু একটা করার কথা ভাবছি অনেক দিন ধরেই,কিভাবে কোথা থেকে শুরু করব বুঝতে পারছি না’’।সেক্ষেত্রে আপনি এটা নিশ্চিত হোন যে আপনি ঠিক কি করতে চান বা কোন ক্ষেত্র নিয়ে কাজ করতে চান।তারপর আপনি আপনার সেই বাছাইকৃত ক্ষেত্রটি সম্পর্কে কতটুকু জানেন,কি জানেন সেটা বের করুন।আর যা জানেন না বা আপনার প্রশ্নগুলো নিয়ে একটু রিসার্চ করুন,জানার চেষ্টা করুন।অর্থাৎ আপনার পছন্দের ক্ষেত্রটিতে দক্ষতা অর্জন করুন ।তাছাড়াও ইউটিউব,গুগোল বা আপনার পরিচিত সিনিয়র জুনিয়র যারা নিজ উদ্যোগে কিছু করছেন তাদের থেকেও পরামর্শ নিতে পারেন।শুধুমাত্র না ভেবে যা করার এখনি শুরু করুন।

কোন ক্ষেত্র নিয়ে কাজ করবেন?

কোন ক্ষেত্র নিয়ে কাজ করবেন সেটা সম্পূর্ণ আপনার ব্যাপার।ধরুন আপনি ফটোগ্রাফি করতে পছন্দ করেন বা শখের বসেই ফটোগ্রাফি করেন এবং বন্ধুমহলে বেশ প্রশ্নগসাও পেয়ে থাকেন।সেক্ষেত্র আপনি ফটোগ্রাফি নিয়েই আগাতে পারেন।বা আপনি যদি খুব সুন্দর ডেকোরেট করতে পারেন আপনি সেটা নিয়েও আগাতে পারেন।খুলে ফেলতে পারেন একটি ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি।বা দেখা গেলো আপনি ভালো আকিবুকি করতে পারেন তাহলে আপনি সেটা নিয়েও আগাতে পারেন।কাজের অগণিত ক্ষেত্র আছে,আপনাকে আপনার স্কিল টা খুজে বের করতে হবে।

সবশেষে বলব আপনার সাফল্যের মাপকাঠি আপনি ঠিক করবেন।পাশের বাসার জুনিয়র,ভার্সিটির সিনিয়র বা পরিচিত ,তাদের কাছ থেকে আপনি পরামর্শ নিতে পারবেন কিন্তু আপনি কি করবেন সেটা আপনাকেই ঠিক করতে হবে।অন্য কেউ একজন যে পথে সফল আপনিমসেই পথে হাটলেই যে সফল হতে পারবেন তা কিন্তু না।যাই করুন না কেনো দক্ষতা এবং ধৈর্য নিয়ে করুন।

সাজ্জাতুল ইয়াকিন কসমিক

সি ই ও

সফটকেয়ার আইটি

Read More

Connect With Us

We are waiting for your response.....